দৈনিক গৌড় বাংলা

শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

আদালতে ট্রাম্পের মুখোমুখি স্টর্মি ড্যানিয়েলস

আদালতে সাবেক পর্ন তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলসের মুখোমুখি হয়েছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কথিত একটি যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনায় দীর্ঘদিন ধরে বিচারের অপেক্ষায় রয়েছেন ট্রাম্প। যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনা ধামাচাপা দিতে ঘুষ দেওয়ার অভিযোগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নিউইয়র্কের আদালতে শুনানি চলছে। খবর বিবিসির। এই মামলায় গত মঙ্গলবার যখন ড্যানিয়েলস এবং ট্রাম্পকে প্রথমবারের মতো আদালতে মুখোমুখি করা হয় তখন আদালত এবং এর আশপাশে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ঢিলেঢালা কালো পোশাকে, পেছনে চুল বেঁধে আদালতে উপস্থিত হয়েছিলেন সাবেক স্টর্মি ড্যানিয়েলস। ট্রাম্পের মুখোমুখি হলেও এ সময় তাকে একবারের জন্যও ট্রাম্পের দিকে তাকাতে দেখা যায়নি।

আদালতের কাঠগড়ায় তিনি যতক্ষণ ছিলেন, ততক্ষণ সেই যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনা বর্ণনা করেছেন। ট্রাম্প ব্যবসায়িক রেকর্ড জালিয়াতির ৩৪টি অপরাধমূলক মামলার মুখোমুখি হয়েছেন। এর মধ্যে একটি ছিল ট্রাম্পের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে মুখ বন্ধ রাখতে ড্যানিয়েলসকে এক লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার দিয়েছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্টের আইনজীবী। এই ঘটনায় নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন ড্যানিয়েলস। সেই সঙ্গে ট্রাম্পের সঙ্গে যৌন সম্পর্কের কথাও অস্বীকার করেছেন তিনি। যদিও তার দাবি, তার মুখ বন্ধ রাখতে ট্রাম্পের প্রাক্তন আইনজীবী মাইকেল কোহেন তাকে টাকা দিয়েছিলেন। ঘুষ গ্রহণ করার কারণে তাকে যে কোনো সময় আদালতে হাজির করা হতে পারে এই ধারণা আগে থেকেই ছিল। কিন্তু সব নাটকীয়তার জবাব মিললো গত মঙ্গলবার আদালতে তার উপস্থিতির মধ্য দিয়ে। আদালতের শুনানিতে তিনি ট্রাম্পের সঙ্গে এই কেলেঙ্কারির ঘটনার মুহুর্তগুলো বর্ণনা করেছেন। যদিও তখন ট্রাম্পের আইনজীবী বিষয়টিকে ভুল বলে দাবি করেছেন।

এই শুনানির সময় বিচারপতি হুয়ান মের্চান প্রসিকিউটরদের এ ধরনের ব্যক্তিগত তথ্য না চাওয়ার জন্য সর্তক করেন। দিনের শুরুতে ট্রাম্পের আইনজীবীরা ২০০৬ সালে ড্যানিয়েলসের কথিত যৌন কেলেঙ্কারি নিয়ে কী প্রশ্ন করা যেতে পারে সে বিষয়ে বিচারপতি মের্চানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এ সময় প্রসিকিউটর বলেন, ড্যানিয়েলসকে অর্থ দেওয়া হয়েছিলো কিংবা সেটার উদ্দেশ্য কী ছিল তা নিয়ে প্রশ্ন করা দরকার। ড্যানিয়েলস ট্রাম্পের সঙ্গে তার এই কথিত যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনাটি নিয়ে এবারই প্রথম আদালতে কথা বলেননি। এর আগেও এ বিষয়ে তিনি বিভিন্ন গণমাধ্যমে এবং টেলিভিশনে কথা বলেছেন। দিনের শুরুতে আদালতে উপস্থিত হওয়ার পর তাকে অনেকটা বিচলিত মনে হচ্ছিল। তিনি দ্রুত গতিতে কথা বলছিলেন। তখন আদালত তাকে ধীর স্থির হয়ে ঠা-া মাথায় কথা বলার জন্য অনুরোধ জানান। এই শুনানিতে প্রসিকিউটরা এমন কিছু প্রশ্ন করছিলেন যার কারণে তিনি কিছুটা বিব্রত হয়েছেন। তখন বিচারক এ বিষয়ে আইনজীবীদের সর্তক করেন।

এ সময় ড্যানিয়েলস আদালতে ২০০৬ সালের সেই ঘটনার বর্ণনা করে বলেন, তখন ট্রাম্পের সঙ্গে একটি ডিনারে যোগ দিতে অনুরোধ পেয়েছিলেন তিনি। আদালতকে তিনি বলেন, প্রথমে ট্রাম্পের সাথে ডিনারে যোগ দিতে চাননি। কিন্তু ট্রাম্পের এক সহযোগী তাকে যাওয়ার জন্য উৎসাহিত করছিল। এরপর তিনি ট্রাম্পের স্যুটে ডিনারের সেই দিনের বর্ণনা দেন। ট্রাম্পের আইনজীবীরা ড্যানিয়েলসকে জেরা করার আগে প্রসিকিউটররা একাধিকবার আপত্তি তোলেন। তারা বলেন ড্যানিয়েলসের স্বাক্ষীর ওপর ভিত্তি করে ঘটনা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায় না। এটাকে একটি পক্ষপাতমূলক আচরণ বলেও বর্ণনা করেন তার আইনজীবীরা। এ কারণে এই শুনানিতে ড্যানিয়েলসকে কয়েক বার থামানোর চেষ্টা করেছিলেন ট্রাম্পের আইনজীবীরা। তখন বিচারপতি মের্চান বলেন, স্বাক্ষীকে নিয়ন্ত্রণ করা একটু কঠিন কাজ। তবে ঘটনা সংক্ষেপে বলার জন্য তিনি অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, ঘটনাগুলো যে এত বিশদভাবে বলা হচ্ছে, তা অপ্রয়োজনীয়। যদিও আদালতে শুনানির পর ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন, তিনি মনে করেন বিচার প্রক্রিয়া ভালোভাবে চলছে।

About The Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *