অভিষেক বিশ্বকাপ রাঙাতে উন্মুখ সালমা-রুমানা-জাহানারা

10

আগামী ৪ মার্চ থেকে নিউজিল্যান্ডে শুরু হচ্ছে আইসিসি ১২তম নারী ওয়ানডে বিশ্ব কাপ। এবারই প্রথম ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলতে নামছে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল।আর তাই স্বাভাবিকভাবেই প্রথম বিশ্বকাপ নিয়ে রোমাঞ্চিত সালমা-রুমানা-জাহানারারা। অধিনায়ক নিগার সুলতানার মতে ওয়ানডে বিশ্বকাপের অভিষেক আসর স্মরণীয় করে রাখতে উন্মুখ পুরো বাংলাদেশ শিবির। বিশ^কাপ শুরুর আগে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল(আইসিসি) আয়োজিত অংশগ্রহণকারী দলগুলোর অধিনায়কদের সাক্ষাৎকারে টুর্নামেন্টে ভাল করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বাংলাদেশের নিগার সুলতানা। ২০১৮ সালের এশিয়া কাপের শিরোপা জয় করেছিলো বাংলাদেশ নারী দল।

ফাইনালে শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে প্রথমবারের মত এশিয়া কাপের শিরোপা জিতে বাংলাদেশ। ওয়ানডে বিশ^কাপ প্রথম হলেও, টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপে চারবার খেলেছে তারা। তাই অভিজ্ঞ দল নিয়ে ওয়ানডে বিশ^কাপে ভালো করার ব্যাপারে আশাবাদী নিগার। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি, এটা আমাদের সবার জন্য বড় সুযোগ। এর জন্য আমরা কঠোর পরিশ্রম করছি। এটা আমাদের প্রথম বিশ্বকাপ। এখানে ভাল করতে পারাটা বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য বড় একটি ব্যাপার হবে বলেই আমি মনে করি।’ নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনের সাথে মানিয়ে নিতে গত ৩ ফেব্রুয়ারি দেশ ছাড়ে বাংলাদেশ। মূল মঞ্চে নামার আগে অনুশীলন সেশন ভালো হয়েছে বলে জানান নিগার। তিনি বলেন, ‘আমরা এখানে অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ অনুশীলন সেশন করেছি। উইকেট ও কন্ডিশন বোঝার চেষ্টা করছি। আমি মনে করি, মেয়েরা খুব ভালো করেছে।’ নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন অচেনা হলেও, পুরুষ দলের অনেকের কাছ থেকে এখানকার পরিবেশ সর্ম্পকে ধারনা নিয়েছেন বলে জানান নিগার। এ বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টেস্ট ম্যাচ জিতেছে মোমিনুল হকের দল। নিউজিল্যান্ডের পরিবেশ সর্ম্পকে নিজ দেশের নারী ক্রিকেটারদের ধারনা দেন মোমিনুল-এবাদতরা।
নিগার বলেন, ‘অনেকের সাথেই আমাদের ভালো সম্পর্কে আছে। তারা এখানকার কন্ডিশন সম্পর্কে ও এখানে কিভাবে খেলা উচিত, সে সব নিয়ে কথা বলেছে।’ টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়া আট দলের মধ্যে স্বাগতিক হিসেবে বিশ^কাপে সরাসরি খেলার সুযোগ পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। আর ২০১৭-২০ সালের মধ্যে আইসিসি নারী চ্যাম্পিয়নশিপে পয়েন্ট তালিকায় ওপরের দিকে থাকায় বিশ^কাপে খেলার টিকিট পায় অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারত। তবে বাছাই পর্ব খেলতে হয়েছে বাংলাদেশসহ অন্যান্য দলগুলোকে। কিন্তু করোনাভাইরাসের নতুন ধরন অমিক্রন ছড়িয়ে পড়ায় জিম্বাবুয়ের মাটিতে হওয়া বাছাই পর্ব মাঝপথেই বাতিল হয়। তবে নারীদের ওয়ানডে র্যাংকিংয়ে উপরের দিকে থাকায় বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ^কাপে খেলার সুযোগ পায়। আগামী ৫ মার্চ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ^কাপ মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ নারী দল। এরপর আরও ৬টি ম্যাচ খেলবে তারা। টুর্নামেন্টের প্রথম রাউন্ড হবে লিগ পদ্ধতিতে। সেখানে প্রতিটি দল অন্য সব দলের বিপক্ষে একবার করে খেলবে। লিগ পর্ব শেষে সেরা চার দল সেমিফাইনালের খেলার টিকিট পাবে। ক্রাইস্টচার্চে ৩ এপ্রিল ফাইনাল দিয়ে শেষ হবে আসর। মূল মঞ্চে নামার আগে দু’টি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আগামীকাল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এবং ২ মার্চ পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ রয়েছে।