অন্তর্জালে উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন জয়া

11

দুই বাংলার দর্শক নন্দিত অভিনেত্রী জয়া আহসান। অভিনয় নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করলেও সোশ্যাল মিডিয়ায় দারুণ সরব এই অভিনেত্রী। গত সোমবার জয়া তার কয়েকটি ছবি ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন। যা অন্তর্জালে উষ্ণতা ছড়াচ্ছে। এসব ছবিতে দেখা যায়Ñজয়ার পরনে কালো রঙের পোশাক। তার ওপরে ধূসর রঙের একটি পাতলা শার্ট টাইপের পোশাক পরেছেন। মাথায় রঙিন কোকঁড়া চুল। একেকটি ছবিতে জয়ার একেক অভিব্যক্তি মুগ্ধ করেছে নেটিজেনদের। ভক্তরা মন্তব্য করে নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। ফারহানা হক নামে একজন লিখেছেন, ‘আগুন! পুরাই আগুন! এত সুন্দর মেইনটেইন করেছেন নিজেকে।’

আজমিনুর নামে একজন লিখেছেন, ‘ন্যাচারাল বিউটি।’ নাজমুল ইসলাম রাব্বী নামে এক ভক্ত লিখেন, ‘অবশেষে আজকের তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণ খুঁজে পাওয়া গেল।’ তাহিরা মঞ্জুর বৃষ্টি লিখেছেন, ‘সকালবেলা আগুন লাগায় দিলেন।’ জয়ার দাবিÑ তার বয়স ৩৯। কিন্তু তার ছাপ বিন্দুমাত্র পড়েনি চেহারায়। বরং এ প্রজন্মের তরুণ নায়িকারাও তার শরীরি সৌন্দর্যের কাছে অনায়াসে পরাজিত। তাই তো নতুন এসব ছবিতে জয়াকে দেখে বিস্ময় প্রকাশ করছেন নেটিজেনরা। একজন লিখেছেন, ‘এটা কীভাবে সম্ভব।’

কেউ কেউ বলছেন, ‘জয়া যেন বনসাই।’ এমন অসংখ্য মন্তব্য ভেসে বেড়াচ্ছে অন্তর্জালে।জয়া অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা ‘ঝরা পালক’ গত জুন মাসে মুক্তি পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। জীবনানন্দ দাশের জীবনীভিত্তিক সিনেমাটি নির্মাণ করেন সায়ন্তন মুখার্জি। এতে জীবনানন্দ দাশের স্ত্রী লাবণ্যপ্রভা দাশের চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান। জয়া অভিনীত ‘বিউটি সার্কাস’ সিনেমাটি আগামী সেপ্টেম্বরে মুক্তির কথা রয়েছে। মাহমুদ দিদার পরিচালিত এ সিনেমায় প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া। তা ছাড়াও পশ্চিমবঙ্গে তার কয়েকটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে।

জয়া অভিনীত প্রথম সিনেমা ‘ব্যাচেলর’ মুক্তি পায় ২০০৪ সালে। ‘গেরিলা’ সিনেমায় বিলকিস বানুর চরিত্রে অভিনয় করে দারুণ প্রশংসা কুড়ান। এরপর এই নায়িকার ‘চোরাবালি’ সিনেমাটিও প্রশংসিত হয়। এ পর্যন্ত চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেছেন তিনি। ওপার বাংলার সিনেমায় অভিনয় করে দর্শকের নজর কেড়েছেন জয়া। কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ পেয়েছেন বেশ কিছু সম্মাননা। এ তালিকায় রয়েছেÑফিল্মফেয়ার, আনন্দলোক পুরস্কার প্রভৃতি।