দৈনিক গৌড় বাংলা

মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

অনন্য কীর্তি গড়লেন ওয়াসিম

এসিসি প্রিমিয়ার কাপে ব্যাট হাতে আলো ঝলমলে পারফরম্যান্সের দারুণ এক স্বীকৃতি পেলেন মুহাম্মাদ ওয়াসিম। পাকিস্তানের শাহিন শাহ আফ্রিদি ও নামিবিয়ার গেরহার্ড এরাসমাসকে পেছনে ফেলে আইসিসির এপ্রিল মাসের সেরা পুরুষ ক্রিকেটার নির্বাচিত হলেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের এই ওপেনার। নারীদের সেরা ওয়েস্ট ইন্ডিজের হেইলি ম্যাথিউস। গত মাসের পুরুষ ও নারী সেরা ক্রিকেটারের নাম সোমবার নিজেদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে আইসিসি। আরব আমিরাতের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে আইসিসি ‘প্লেয়ার অব দা মান্থ’ নির্বাচিত হলেন ওয়াসিম। খুব স্বাভাবিকভাবেই দারুণ উচ্ছ্বসিত তিনি। “আইসিসি মেন’স প্লেয়ার অব দা মান্থ অ্যাওয়ার্ড জেতা অনেক সম্মানের। সারা বিশ্ব থেকে পুরস্কার জয়ীদের অভিজাত তালিকায় যুক্ত হতে পেরে আমি রোমাঞ্চিত।” ওমানে অনুষ্ঠিত এসিসি প্রিমিয়ার কাপে আরব আমিরাতের চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় ব্যাট হাতে বড় অবদান অধিনায়ক ওয়াসিমের। টি-টোয়েন্টি সংস্করণের ওই টুর্নামেন্টে গত মাসে ৬ ইনিংসে ৪৪.৮৩ গড়ে তিনি করেন ২৬৯ রান। বাহরাইনের বিপক্ষে ৪০ বলে ৬৫ রানের ইনিংস খেলার পর ওমানের বিপক্ষে ২৫ বলে ৪৫ ও কম্বোডিয়ার বিপক্ষে ১৮ বলে ৪৮ রান করেন তিনি। ফাইনালে ওমানের বিপক্ষে করেন সেঞ্চুরি, ৫৬ বলে খেলেন ১০০ রানের ইনিংস। ফাইনালের সেরার পাশাপাশি টুর্নামেন্টেরও সেরা হন ৩০ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান। মেয়েদের সেরা হতে ম্যাথিউস পেছনে ফেলেছেন শ্রীলঙ্কার চামারি আতাপাত্তু ও দক্ষিণ আফ্রিকার লরা উলভার্টকে। তৃতীয়বারের মতো পুরস্কারটি জিতলেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক। এর আগে জিতেছিলেন ২০২১ সালের নভেম্বরে ও ২০২৩ সালের অক্টোবরে। গত মাসে ব্যাটে-বলে আলো ছড়ান ম্যাথিউস। পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে তিনি সেঞ্চুরি করেন দুটি। একই দলের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ফিফটি করেন টানা দুই ম্যাচে। গত বছরের আইসিসি উইমেন’স টি-টোয়েন্টি বর্ষসেরা এই ক্রিকেটার এপ্রিলে সীমিত ওভারের দুই সংস্করণ মিলিয়ে ৬ ম্যাচে করেন ৪৫১ রান। অফ স্পিনে উইকেট নেন ১২টি- ওয়ানডেতে ৬টি, টি-টোয়েন্টিতে ৬টি।

About The Author

This will close in 0 seconds